Fact Check: পুরনো ভিডিও ভাইরাল হয়েছে এই দাবি করে যে রাশিয়া ‘আমেরিকার উঠোন’-এ ঢুকে পড়েছে

0 247

রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে চলতি যুদ্ধের সময় সিএনএন–এর একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হচ্ছে, যেখানে দাবি করা হয়েছে যে রাশিয়া আমেরিকার উঠোনে পৌঁছে গিয়েছে। এইভাবে ইঙ্গিত করা হচ্ছে যে রাশিয়া এখন আমেরিকাকে আক্রমণ করতে চলেছে। ভিডিওর এমবেডেড ভাষ্যে লেখা আছে, “আমেরিকার উঠোনে সামরিক পদক্ষেপ নিচ্ছেন পুতিন।”

পোস্টটি একটি ক্যাপশন সহ শেয়ার করা হচ্ছে যাতে লেখা আছে, “আমেরিকার উঠোনে পুতিন সামরিক পদক্ষেপ নিচ্ছেন। পুতিন আমেরিকার দোরগোড়ায়। রাশিয়া ভেনেজুয়েলার বাহিনীর সাথে ক্যারিবিয়ানে পারমাণবিক ক্ষমতাসম্পন্ন বোমারু বিমান উড়িয়েছে। পুতিন বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী নেতা। পুতিনের প্রতিরোধ দীর্ঘজীবী হোক।”

উপরের পোস্টোর লিঙ্ক এখানে (‌ here   )‌।

FACT CHECK
নিউজমোবাইল একটি ফ্যাক্ট-চেক করে দেখেছে দাবিটি ভুয়ো।

গুগল রিভার্স ইমেজ সার্চ করার সময় আমরা দেখতে পাই একজন টুইটার ব্যবহারকারী(‌ Twitter user   )‌ এই পোস্টটি শেয়ার করেছেন একটি ক্যাপশন সহ যেটিতে লেখা ছিল, “ফেসবুকে আপলোড করা একটি ক্লিপ ১৫,০০০–এর বেশি শেয়ার এবং ১.৯ মিলিয়ন ভিউ হয়েছে। এতে ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে ভেনিজুয়েলার বাহিনীর সঙ্গে রাশিয়ার সামরিক মহড়া নিয়ে সিএনএন একটি প্রতিবেদন দেখা যাচ্ছে – তবে এটি সাম্প্রতিক নয়!’‌’‌ পোস্টটিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, ইউটিউব লিঙ্কে সিএনএন–এর যে রিপোর্টটি আছে তা ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের।

আমরা আরও দেখতে পেয়েছি যে ১২ ডিসেম্বর, ২০১৮-এ সিএনএন(‌ CNN   )‌ একই ভিডিও আপলোড করেছিল, যার শিরোনাম ছিল: “রাশিয়ান বোমারু বিমান আমেরিকার দোরগোড়ায় নেমে এসেছে।’‌’‌ ছবির সঙ্গে বর্ণনায় লেখা হয়েছে, “রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ভেনেজুয়েলায় আমেরিকার দোরগোড়ায় নিয়ে এসেছেন পরমাণু–সক্ষম বোমারু বিমান যা শব্দের দ্বিগুণ গতিতে উড়তে পারে। সিএনএন এর ব্রায়ান টড রিপোর্ট করেছেন।’‌’‌

কাজেই স্পষ্টতই দেখা যাচ্ছে ভাইরাল হওয়া সিএনএন ভিডিওটি ২০১৮ সালের।