Fact Check: বাংলাদেশে এক ব্যক্তির হরিণ শিকারের পুরানো ভিডিওটি অসত্যভাবে কাল্পনিক কংগ্রেস নেতার সঙ্গে যুক্ত করা হচ্ছে

0 258

সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে যাতে দেখা যাচ্ছে যে একজন ব্যক্তি বেড়া দিয়ে ঘেরা জায়গার মধ্যে একটি হরিণকে গুলি করছেন। ভিডিওটি এই দাবি করে শেয়ার করা হচ্ছে যে ভিডিওটিতে যে ব্যক্তি হরিণটিকে গুলি করছেন তিনি কংগ্রেস নেতা অনিল উপাধ্যায়।

একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ভিডিওটি হিন্দিতে ক্যাপশন সহ শেয়ার করেছেন যেটি ইংরেজি অনুবাদে মোটামুটি এরকম: “সলমান খান এখনও হরিণ শিকারের মামলায় আদালতের দ্বারে ঘুরছেন। কিন্তু এই কংগ্রেস বিধায়ক অনিল উপাধ্যায় একটি পার্কে একটি হরিণকে গুলি করেন। শুটিংয়ের পরে তিনি একটি বড় ছুরি দিয়ে হরিণটির গলা কেটে ফেলেন এবং তারপর খুশি হয়ে সেটিকে নিয়ে একটি ছবি তোলেন। এই ভিডিওটি ভাইরাল করুন যাতে আদালত তাঁকে শাস্তি দেয়।”

(মূল হিন্দি ক্যাপশন: सलमान खान अभी भी हिरणों के शिकार के लिए अदालतों का चक्कर लगा रहे हैं। लेकिन कांग्रेस के इस विधायक अनिल उपाध्याय ने एक पार्क में हिरण को सरेआम गोली मारी। और इस कमीने की नीचता देखो गोली मारने के बाद एक बड़े चाकू से उसका गला काट दिया और फिर कितना खुश होकर अपनी फोटो खिंचवा रहा हे। इसे वायरल करें और अदालत उसे सजा दे।)

ওপরের পোস্ট দেখুন এখানে (‌  here  )‌।

FACT CHECK
নিউজমোবাইল এর সত্যতা যাচাই করে দেখেছে যে দাবিটি ভুয়ো।

ভিডিওর কিফ্রেম ব্যবহার করে রিভার্স ইমেজ সার্চ করার সময় আমরা ১২ জুলাই, ২০১৫-এ দ্য ডেইলি স্টার (‌ The Daily Star )‌ প্রকাশিত একটি নিবন্ধের কভার ইমেজ হিসাবে একটি কিফ্রেম খুঁজে পেয়েছি। নিবন্ধটির শিরোনাম ছিল, “কোন জানোয়ার?”

নিবন্ধ অনুসারে, ঘটনাটি ৪ জুলাই, ২০১৫–এ বাংলাদেশের চট্টগ্রামের একটি খামারে ঘটেছিল।

ভিডিওটিতে থাকা ব্যক্তি মইন উদ্দিন ফেসবুকে (‌ Facebook   )‌ গিয়ে নিবন্ধে উল্লেখিত বিবরণ সম্পর্কে একটি দীর্ঘ নোট লিখেছেন। তিনি লিখেছেন, “অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে হরিণ শিকার একটি স্বাভাবিক বিষয়, যেখানে আপনি গিয়ে খামারে হরিণ শিকার করতে পারেন। যারা ভিডিওটি দেখে হতবাক বা বিরক্ত হয়েছেন, তাঁদের কাছে আমি আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী। আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে আমি এই ধরনের কাজ আর কখনও করব না।

https://www.facebook.com/sharer/sharer.php?u=https%3A%2F%2Fwww.facebook.com%2Fmoin.uddin.125%2Fposts%2F1032885623420942&display=popup&ref=plugin&src=post

অধিকন্তু, ওই নামটি দিয়ে মাই নেতা (‌  My Neta )‌ ডেটাবেসে স্ক্যান করলে দুটি ফলাফল দেখায়:‌ যোধপুরের একজন বিএসপি নেতা যিনি ২০১৮ সালের রাজস্থান নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন, এবং দ্বিতীয় জন লখনউ থেকে একজন নির্দল প্রার্থী যিনি উত্তর প্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে দু’‌বার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন – ২০০৭ এবং ২০১২ সালে। যাই হোক, আমরা কংগ্রেসের কোনও অনিল উপাধ্যায়কে খুঁজে পাইনি।

নিউজমোবাইল ২০২০ (‌ 2020  )‌ এবং ২০২১ (‌ 2021  )‌ সালে একই ভিডিও খারিজ করেছিল, যখন এটি একই ধরণের ভুয়ো বর্ণনা দিয়ে শেয়ার করা হয়েছিল।

Fact Check: Old Video Of Man Hunting Deer In Bangladesh Falsely Linked To Fictitious BJP Leader

This viral video of a man shooting a deer is NOT from Bengal; here’s the fact check

সুতরাং, আমরা এই উপসংহারে আসতে পারি যে বাংলাদেশের একটি পাঁচ বছরের পুরনো ঘটনার ভিডিও অসত্য দাবি করে শেয়ার করা হচ্ছে যে এতে দেখা যাচ্ছে একজন কংগ্রেস নেতা একটি পার্কে হরিণ শিকার করছেন।