Fact Check: এই ছবিগুলো কি গুয়াহাটির সাম্প্রতিক ট্রেন দুর্ঘটনার? সত্য জানুন এখানে

0 282

একটা ট্রেনের কিছু আগুনে জ্বলতে–থাকা কোচের ছবি সামাজিক মাধ্যমে ঘুরছে এই দাবিসহ যে সেগুলো গুয়াহাটির সাম্প্রতিক ট্রেন দুর্ঘটনার ছবি।

ছবিগুলো শেয়ার করা সময় ক্যাপশন দেওয়া হচ্ছে: “নগাসি বিহার টার্মিনাল এক্সপ্রেস ট্রেন না গুয়াহাটি ইউরাকপাড়া সেই হওড়াকপড়াগি চাকখারে সে কায়া আমা শিখারে।”

ওপরের পোস্ট ( post ) দেখুন এখানে ।

FACT CHECK
নিউজমোবাইল এর ফ্যাক্ট চেক করে দেখেছে যে এই দাবি অসত্য।

আমরা অনুসন্ধান শুরু করে কিওয়র্ড দিয়ে গুগল সার্চ করে দেখতে পাই একই ক্যাপশন–সহ এই ছবি ২০১৮ সালের ৭ মে ফেসবুকের (‌ Facebook )‌ একটি পোস্টেও আছে।

আমরা প্রতিটি ছবির রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখতে পাই প্রত্যেকটা ছবিই পুরনো।

চিত্র ১
প্রথম ছবির রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখতে পাই এই ছবি আছে ২০১৮ সালের ২২ মে তারিখে অমর উজালার (‌ Amar Ujala )‌ একটি রিপোর্টে।

রিপোর্টের হেডলাইন ছিল:‌ “तस्वीरें: देखें कैसे जल उठे नई दिल्ली-आंध्र प्रदेश एक्सप्रेस के कोच, यात्रियों ने ऐसे बचाई जान” (অনুবাদ:‌ ফোটো: দেখুন নয়া দিল্লি–অন্ধ্র প্রদেশ এক্সপ্রেসের কোচগুলিতে কেমন আগুন জ্বলছে। যাত্রীরা জীবন বাঁচাতে পেরেছেন।)

নয়া দিল্লি থেকে বিশাখাপত্তনমগামী নয়া দিল্লি–অন্ধ্র প্রদেশ এক্সপ্রেসের (‌২২৪১৬)‌ দুটি কোচে ২০১৮–র ২১ মে মধ্যপ্রদেশর গোয়ালিয়র জেলার বিড়লা নগর স্টেশনের কাছে  আগুন লেগে যায়। রেল কর্তৃপক্ষের নতে শর্ট সার্কিটের জন্য আগুন লেগেছিল।

এমন আরও রিপোর্ট দেখুন এখানে ও এখানে (‌ here and here )‌

চিত্র ২
দ্বিতীয় ছবির রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখতে পাই এই ছবি আছে টিভি৯ হিন্দির (‌ TV9 Hindi )‌ ২০১৯ সালের ১৫ ডিসেম্বরের এক রিপোর্টে। রিপোর্টে এই ছবিটিকে ফাইল ইমেজ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

নিউজমোবাইল নিজে এই ছবির উৎস বা স্থান নির্ণয় করতে পারেনি। তবে ওপরের তথ্য থেকে স্পষ্ট এটা পুরনো ছবি যা ২০১৮ থেকে ব্যবহৃত হচ্ছে।

আমরা ইন্ডিয়ান রেলের সামাজিক মাধ্যম হ্যান্ডলগুলো খুঁজে ভাইরাল দাবির সমর্থনে কোনও টুইট বা পোস্ট দেখতে পাইনি।

এর আগে ছাপরা এক্সপ্রেস ও আনন্দ বিহার টার্মিনাল এক্সপ্রেসের সংঘর্ষের ছবি হিসেবে এমনই একটা ছবি শেয়ার করা হলে নিউজমোবাইল তা খারিজ (‌ debunked   )‌ করেছিল।

https://newsmobile.in/articles/2021/05/13/fact-check-old-pictures-of-train-accident-shared-as-recent-collision/

ওপরের তথ্য থেকে স্পষ্ট যে ছবিটি পুরনো। কাজেই দাবিটি মিথ্যা।