Fact Check: গ্রেটার নয়ডায় পুলিস এনকাউন্টারের ছবি উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ের ছবি হিসেবে ভাইরাল

0 493

একটি ভিডিওয়, যাতে দেখা যাচ্ছে দু’‌জন পুলিস এক আহতকে নিয়ে যাচ্ছেন, ভাইরাল হয়েছে এই দাবি সহ যে আজমগড়ে দুর্গা পুজো প্যান্ডাল ভাঙার হুমকি দিতে আসা এক মুসলিম পুলিশের হাতে আহত হয়েছে।

ফেসবুকে শেয়ার করার সময় ভিডিওর ক্যাপশন দেওয়া হয়েছে, ‘ইউপি পুলিশ স্বাগত জানাচ্ছে আদিলকে, যে আজমগড়ে দুর্গা পুজো প্যান্ডাল ভাঙার হুমকি দিয়েছিল বন্দুকের ভরসায়। এটা বাংলা নয়, উত্তরপ্রদেশ। এখনে মমতা নয়, রাজ করেন আমাদের বাবা।’‌

(Original Text: आजमगढ़ में तमंचे के दम पर दुर्गा पूजा पंडाल हटाने की धमकी देने वाले #आदिल का स्वागत सत्कार करती U P पुलिस… ये बंगाल नही उत्तरप्रदेश हैं, जहाँ ममता नही हमारे #बाबा का राज चलत हैं ।)

এখানে এই পোস্টের লিঙ্ক (‌ post   )‌ দেওয়া হল। একই রকম পোস্ট দেখুন এখানে, এখানে ও এখানে (‌ herehere and here   )‌।

FACT CHECK
নিউজমোবাইল এর ফ্যাক্ট চেক করে দেখেছে যে এই দাবি বিভ্রান্তিকর।

আমরা ভিডিওর কিফ্রেমগুলো বার করি ইনভিড টুল ব্যবহার করে, আর তারপর রিভার্স ইমেজ সার্চ করে ২০২১–এর ১৭ অক্টোবর ইউটিউবে (‌ YouTube video  )‌ একটি একই ধরণের ভিডিও পাই। তাতে বলা ছিল, ‘গ্রেটার নয়ডা:‌ বেটা ২ পুলিসের সঙ্গে স্ক্রুড্রাইভার গ্যাংয়ের এনকাউন্টার, কমিশনার পুরস্কার ঘোষণা করেছিলেন।’‌

এর সূত্র ধরে কিওয়র্ড সার্চ করে আমরা অনেকগুলি সংবাদ–নিবন্ধ (  article  )  দেখতে পাই যেখানে এই সংক্রান্ত রিপোর্ট ছিল। ২০২১–এর ১৮ অক্টোবর প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়েছিল, ‘‌দিল্লির কাছে গ্রেটার নয়ডায় অনেক দিন ধরে ‘‌পেচকস গ্যাং’‌ নানা কুকীর্তি করছিল। এদের দৌরাত্মে অস্থির পুলিস অনেকদিন ধরে এদের ধরার চেষ্টা করছিল। শেষ অবধি গত রবিবার পুলিস বড় সাফল্য পায়। তারা ধরে ফেলে চারজনকে যারা গাড়িতে লিফট নিয়ে তাদের সর্বস্ব লুঠ করত, এটিএম থেকে টাকা তুলে নিত, আর স্ক্রু ড্রাইভার দিয়ে আঘাত করত। চার দুর্বৃত্তকে পুলিস ধরে। এই এনকাউন্টারের সময় ২ পুলিসও আহত হন। গ্যাংয়ের লোকেরা পুলিসের দিকে গুলি ছুঁড়েছিল।’‌

এই খবর ছিল নয়ডা পুনিশের অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডলেও। ২০২১–এর ১৭ অক্টোবর টুইট (‌  tweet   )‌ ছিল, ‘‌বেটা—২ এলাকার থানার চেকিংয়ের সময় ৪ দুর্বৃত্তকে পায়ে গুলি করা হয়, আহত/‌গ্রেপ্তার, ক্যাশ টাকা, ১৭ স্ক্রুড্রাইভার, গাড়ি, বেআইনি অস্ত্র উদ্ধার।’‌

এরপর আমরা আজমগড়ের ঘটনা অনুসন্ধান করে পাই অনেকগুলি সংবাদ নিবন্ধ (‌ news articles    )‌ যেখানে বলা ছিল সেখানে একজন মুসলিম যুবক দুর্গাপুজোর প্যান্ডেলে ঢুকে গুন্ডামি করে। সে বন্দুক নিয়ে ভয় দেখিয়ে প্যান্ডেল খুলে ফেলতে বলে। তাছাড়া সে প্রশ্ন তোলে সেখানে পুজো করা হচ্ছে কী করে। এখন সে পুলিশ হেপাজতে আছে। তার নাম আদিল আহমেদ ওরফে ‘‌মন্টু’‌।

এই ঘটনা নিয়ে আজমগড় পুলিস টুইট (  tweet  )  করেছিল, “অভিযুক্তকে পুলিস গ্রেপ্তার করে মামলা দায়ের করেছে যে সে বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ধর্মীয় স্থানে (‌দুর্গাপুজো প্যান্ডেলে)‌ ঢুকেছিল তারওয়া এলাকার থানায়।”

কাজেই এটা স্পষ্ট নয়ডার একটি এনকাউন্টারের ছবিকে আজমগড়ের বলে চালানো হচ্ছে। কজেই ভাইরাল দাবি বিভ্রান্তিকর।