Fact Check: কর্ণাটকের বাঁধ উপচে পড়ার ভিডিও বাংলাদেশের বন্যার সঙ্গে মিথ্যাভাবে সংযুক্ত

0 439

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হচ্ছে, যাতে দেখা যাচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের ফারাক্কা বাঁধ (‌ Farakka dam )‌ উপচে পড়ছে, এবং তার ফলে প্রতিবেশী বাংলাদেশে ব্যাপক বন্যা হচ্ছে।

বাংলাদেশের উত্তর–পশ্চিম সীমান্ত থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার দূরে, পশ্চিমবঙ্গের গঙ্গা নদীর উপর ফারাক্কা বাঁধ নির্মিত হয়েছিল। ২০২২ সালের জুনে বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চল অবিরাম বর্ষণের কারণে বড়সড় বন্যা হয়েছিল, এবং ৪০ লক্ষেরও বেশি মানুষ আটকা পড়েছিলেন।

ভিডিওটি বাংলা ভাষায় একটি ক্যাপশন সহ ফেসবুকে শেয়ার করা হয়েছে: “ভারতের ফারাক্কা বাধ এর ১০৯ টি গেট দিয়ে পানি প্রবেশ করছে বাংলাদেশে। তিস্তা টিপাইমুখী সহ মোট ১১ টি পানির গেইট খুলে দিয়েছে ভারত সরকার। ডুবে যাওয়ার আশঙ্কা বেশ কয়েকটি জেলা। মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদের এই বাংলাদেশকে ও দেশের সকলকে বন্যা কবল থেকে হেফাজত করুন। আমিন”

এখানে উপরের পোস্টের (‌ post )‌ লিঙ্ক দেওয়া হল।

FACT CHECK

নিউজমোবাইল উপরোক্ত দাবিটির সত্য-পরীক্ষা করেছে এবং দেখেছে এটি বিভ্রান্তিকর।

আমরা ইনভিড টুল ব্যবহার করে ভাইরাল ভিডিও থেকে কিফ্রেমগুলি বের করেছি এবং একটি রিভার্স ইমেজ সার্চ করেছি৷ আমরা একটি ইউটিউব (‌ YouTube )‌ চ্যানেল খুঁজে পেয়েছি যেখানে ১১ আগস্ট, ২০১৯-এ একই ভাইরাল ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছিল, যার ক্যাপশন ছিল: “হেমাবতী ড্যাম গোরুর”।

এটি থেকে একটি সংকেত নিয়ে আমরা দেখতে পেলাম যে গোরুর বাঁধটি ( Gorur Dam ) কর্ণাটকের হাসন জেলায় হেমাবতী নদীর উপর অবস্থিত। ফারাক্কা ব্যারাজ থেকে দূরত্ব ২,৩০০ কিলোমিটারের বেশি।

নিচে ভাইরাল ভিডিও এবং ইউটিউব ভিডিওর মধ্যে তুলনা করা হল।

আমরা গুগল ম্যাপেও গোরুর বাঁধের জন্য অনুসন্ধান করেছি এবং ছবিগুলির ইউটিউব ভিডিওর সঙ্গে মিল রয়েছে৷ এর স্পষ্ট মানে ভাইরাল ভিডিওতে দেখা বাঁধটি কর্ণাটকের গোরুর বাঁধ।

সুতরাং, উপরের তথ্য থেকে এটি স্পষ্ট যে ভাইরাল দাবিটি বিভ্রান্তিকর।