Fact Check: সিঙ্গাপুরে ওয়র্ল্ড সিটিজ সামিট ২০২২-এ কি শুধু মেয়রদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে? এখানে সত্য

0 425

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে সিঙ্গাপুরে (জুলাই ৩১-আগস্ট ৩, ২০২২) চার দিনব্যাপী ওয়র্ল্ড সিটিজ সামিট ২০২২-এ যোগ দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। তিনি অভিযোগ করেছেন যে কেন্দ্রীয় সরকার এই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এবং বিশ্বের কাছে দিল্লির শাসনের মডেল উপস্থাপন করতে তাঁর অনুরোধ বিলম্বিত (‌ delaying )‌ করছে।

এই পটভূমিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে একটি ভাইরাল পোস্ট, যেখানে দাবি করা হয়েছে যে অনুষ্ঠানটি মেয়রদের জন্য একচেটিয়া, এবং মুখ্যমন্ত্রীদের জন্য নয়।

একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ক্যাপশন সহ ইভেন্টে উপস্থিতদের ছবি পোস্ট (‌ posted  )‌ করেছেন: তাঁকে সিঙ্গাপুরে শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেওয়ার অনুমতি না–দেওয়ার জন্য  কেজরিওয়াল কেন্দ্রীয় সরকারকে আক্রমণ করছেন। কিন্তু শীর্ষ সম্মেলন মেয়রদের, আর কেজরিওয়াল মুখ্যমন্ত্রী। তিনি যদি মনে করেন যে তিনি শুধুই মেয়র, তাঁর উচিত তা প্রকাশ্যে ঘোষণা করা

আপনি এখানে পোস্টটি (‌ here )‌ দেখতে পারেন।

FACT CHECK
যখন নিউজমোবাইল ভাইরাল পোস্টগুলির সত্য-নিরীক্ষা করে, তখন দেখা যায় এটি বিভ্রান্তিকর।

এই ইভেন্ট সম্পর্কে একটি গুগল কিওয়র্ড সার্চ আমাদের ওয়র্ল্ড সিটিজ সামিটের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে (‌ official website  )‌ নিয়ে যায়। ওয়েবসাইটটি বলে: “বৈশ্বিক, ব্যবসায়িক ও  চিন্তন নেতাদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে যোগ দিন, কারণ তাঁরা দীর্ঘ ও অপ্রত্যাশিত বাধাগুলি থেকে শহরগুলিকে মুক্ত করে সেগুলিকে আরও বাসযোগ্য, টেকসই ও স্থিতিস্থাপক করে তুলতে সেরা অনুশীলন এবং ধারণাগুলি শেয়ার করবেন৷ এই বছর শীর্ষ সম্মেলনটির থিম হল লিভেবল অ্যান্ড সাসটেনেবল সিটিজ: ইমার্জিং স্ট্রংগার।

আরও স্ক্রোল করে আমরা এই শিরোনামে একটি বিভাগ পেয়েছি: ‘কারা আসছেন’ (‌ Who’s coming )‌। লিঙ্কটি আমাদের এই বছরের ইভেন্টের অংশগ্রহণকারীদের তালিকায় নিয়ে যায়। পৃষ্ঠার শীর্ষে আমরা আমন্ত্রিত অতিথিদের বিভাগের উপর ভিত্তি করে তালিকা ফিল্টার করার জন্য একটি বিভাগ দেখতে পাচ্ছি। বিভাগগুলি হল সবাই, মেয়র/শহরের নেতা, মন্ত্রী, মডারেটর এবং স্পিকার। সুতরাং, এটা নিশ্চিত যে ইভেন্টটি শুধু মেয়রদের জন্য নয়।

আমরা ইতিহাস আরও অনুসন্ধান করে দেখতে পেয়েছি যে ২০১৮ সালে অন্ধ্রপ্রদেশের প্রাক্তন এবং তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী এন চন্দ্রবাবু নাইডুও সিঙ্গাপুরে ওয়র্ল্ড সিটিজ সামিটে যোগ (‌ attended )‌ দিয়েছিলেন। টাইমস অফ ইন্ডিয়া, বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড, ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস, এনটিভি তেলুগুর (‌ The Times of IndiaBusiness StandardFinancial ExpressNTV Telugu  )‌মতো স্থানীয় এবং জাতীয় মিডিয়া হাউসগুলি মুখ্যমন্ত্রীর সফরটি কভার করেছিল।

মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলগুলিতেও ইভেন্টের আপডেট প্রকাশিত হয়েছিল। ফেসবুকে (‌  Facebook )‌ একটি লাইভ ভিডিও (‌  live video  )‌ ছাড়াও একটি বিস্তারিত কেস স্টাডি (‌  case study  )‌ প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর ব্যক্তিগত লিঙ্কডইন হ্যান্ডেলে (‌  LinkedIn handle   )‌।

অতএব, আমরা চূড়ান্তভাবে বলতে পারি যে ওয়ার্ল্ড সিটিজ সামিট মেয়রদের জন্য একটি একচেটিয়া ইভেন্ট বলে দাবিটি বিভ্রান্তিকর।