Fact Check: আফগান ভিডিও চাতুরি করে সাম্প্রতিক পাক পাওয়ার প্ল্যান্টের আগুনের সঙ্গে যুক্ত করা হয়ছে

0 739

এক বিশাল বিস্ফোরণের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে। অনেক সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী দাবি করেছেন যে এটি পাকিস্তানের একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সাম্প্রতিক বিস্ফোরণ।

ভিডিওটি ফেসবুকে একটি ক্যাপশন সহ শেয়ার করা হয়েছে: “গুড্ডু পাওয়ার প্ল্যান্ট বিস্ফোরণ, ১৫ বিলিয়ন পাকিস্তানি রুপির ক্ষতি”

এখানে ওপরের পোস্টের (‌ post )‌ লিঙ্ক দেওয়া হল।

FACT CHECK

নিউজমোবাইল উপরোক্ত দাবির সত্য পরীক্ষা করেছে, এবং দেখেছে এটি বিভ্রান্তিকর।

ইনভিড টুল ব্যবহার করে আমরা ভাইরাল ভিডিও থেকে কিফ্রেমগুলি বের করেছি এবং একটি রিভার্স ইমেজ সার্চ করেছি৷ এই অনুসন্ধানটি আমাদের একটি ইউটিউব চ্যানেলে (‌ YouTube channel )‌ নির্দেশিত করেছিল যেটি ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১-এ একই ভাইরাল ভিডিও আপলোড করেছিল। তার ক্যাপশন ছিল: “হেরাত ইসলাম কালা বন্দরে কয়েক ডজন গ্যাস ও তেলের ব্যারেলে আগুন লেগেছে।”

আরও অনুসন্ধান আমাদেরকে রাশিয়া ও তুরস্কের কয়েকটি মিডিয়া অ্যাকাউন্টে নিয়ে যায় যেগুলিতে ভাইরাল ভিডিওতে দেখা বিস্ফোরণের ছবি ছিল।

একটি প্রতিবেদন (‌ report )‌ অনুসারে, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ তারিখে, আফগানিস্তানে কিছু জ্বালানী ট্যাঙ্কে আগুন লেগে যাওয়ার পরে বিস্ফোরণটি ঘটে।

আরেকটি তুর্কি মিডিয়ার রিপোর্ট (‌ Turkish media report )‌ অনুযায়ী, তুর্কি লাইসেন্স প্লেটের ১৮টি ট্রাক বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়ে গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে আফগানিস্তানের “ইসলামিক কালে” (ইসলাম কালা) জেলায়, যে জায়গাটি ইরান সীমান্ত থেকে খুব বেশি দূরে নয়। অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস এবং সিএনএন-ও (‌ Associated Press and CNN )‌ একই রিপোর্ট করেছে।

এই ভিডিওটি ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১-এ আফগানিস্তানের একজন সাংবাদিকও টুইট (‌ )‌ করেছিলেন, যার শিরোনাম ছিল: “#এএফজি (  #AFG ) ফুয়েল ট্যাঙ্কার বিস্ফোরিত হচ্ছে। বিনিয়োগকারীরা কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তাদের অর্থ হারালেন। আফগান-ইরান সীমান্তে আর্থিক ট্র্যাজেডি। কী কারণে আগুনের সূত্রপাত তা কেউ জানে না। এই পর্যায়ে হতাহতের কোন খবর নেই। আমার সঙ্গে ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে।”

পাকিস্তানে এমন কোনও ঘটনা ঘটেছে কিনা তা আমরা খতিয়ে দেখেছি। আমরা দেখতে পেয়েছি যে পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে অবস্থিত গুড্ডু পাওয়ার প্ল্যান্টে (  Guddu power plant )  আগুন লেগেছিল ১৩ জুলাই, ২০২২-এ। সেই ঘটনাটি অনেক মিডিয়া আউটলেট (  media outlets )  দ্বারা রিপোর্ট করা হয়েছিল। বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিস্ফোরণে জাতীয় কোষাগারের ১৫ বিলিয়ন পাকিস্তানি রুপি ক্ষতি হয়েছে।

সুতরাং, উপরের তথ্য থেকে এটা স্পষ্ট যে আফগানিস্তানের একটি পুরনো ভিডিও মিথ্যাভাবে শেয়ার করা হয়েছে সাম্প্রতিক পাকিস্তানের পাওয়ার প্লান্টে আগুন বলে।