‌Fact Check: রাষ্ট্রপতি কোবিন্দের কন্যা ২০১৭ সালে এয়ার ইন্ডিয়াতে গ্রাউন্ড রোল পেয়েছিলেন, এবং এখন নয়, যেমন দাবি করা হয়েছে

0 534

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ তারিখে কেন্দ্র আনুষ্ঠানিকভাবে এয়ার ইন্ডিয়াকে টাটা গ্রুপকে হস্তান্তর করে। সাত দশক আগে এই সংস্থার থেকে এয়ারলাইনটি কেড়ে নেওয়া হয়েছিল। এর পরে একটি পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে যাতে দাবি করা হয়েছে টাটা-র অধিগ্রহণের পরে কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দের কন্যা স্বাতীকে নিরাপত্তার কারণে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টের দায়িত্বের পরিবর্তে স্থল দায়িত্ব দিয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ফেসবুক (  Facebook )  পোস্টে লেখা হয়েছে, “এখন সময় এসেছে যখন ভারতীয় মিডিয়ার ‘‌জুয়েলস অফ ইন্ডিয়া’‌কে উপেক্ষা করার এবং উন্নত বিশ্বের সেলিব্রিটিদের নিয়ে গর্ব করার অবস্থান পরিবর্তন করা উচিৎ!
(প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার মেয়ে তাঁর পরিচয় গোপন করে কিছুদিন একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করছিলেন। তাঁর কর্মস্থলে যাওয়ার সময় কিন্তু মার্কিন নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঠিকঠাক ছিল – যদিও দূর থেকে নজর রাখা হত, যে কারণে রেস্টুরেন্টের মালিক, অন্যান্য কর্মচারীরা বা গ্রাহকরা জানতেন না। বিখ্যাত হওয়া সত্ত্বেও নম্র হওয়া মহান কাজ এবং ভাল পিতামাতার শিক্ষার একটি চিহ্ন… ওবামার মেয়ে এটি করেছেন… এবং এই নিয়ে গত ২-৩ বছর ধরে, বিশেষ করে ভারতীয় মিডিয়াতে, তিনি প্রচুর অযাচিত প্রচার এবং জনপ্রিয়তা পেয়েছেন …) কিন্তু এখনও পর্যন্ত আমরা একই রকম একটি ভারতীয় মেয়ের চূড়ান্ত ভদ্রতা ও নম্রতার কথা জানতাম না। তাঁর নাম স্বাতী! তিনি দেশের শীর্ষস্থানীয় এয়ারলাইন ‘এয়ার ইন্ডিয়া’-তে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট ছিলেন। তিনি অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকার মতো দূরবর্তী দেশে ‘এয়ার ইন্ডিয়া’ বোয়িং ৭৭৭ এবং ৭৮৭ এয়ারক্রাফ্টে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হিসাবে বেশ কয়েক বছর ধরে কাজ করছেন। কিন্তু আপনি কি জানেন – এই ৫.৪′ লম্বা স্বাতীর পুরো নাম…?
তাঁর নাম শ্রীমতি স্বাতী কোবিন্দ! হ্যাঁ, আপনি ঠিকই অনুমান করেছেন – তিনি রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কন্যা!এখন পর্যন্ত, এমনকি ‘এয়ার ইন্ডিয়া’ কর্তৃপক্ষও এই বিষয়ে জানত না।
সংবাদমাধ্যমও জানত না। রামনাথ কোবিন্দ বা তাঁর মেয়ে স্বাতী কোবিন্দ বিষয়টি প্রকাশ করেননি, তাই তা এতদিন গোপন ছিল…! কিন্তু এখন আর গোপন নয়… কারণ ‘এয়ার ইন্ডিয়া’ টাটাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ঘটনাটি জানতে পেরে বর্তমান টাটা কর্তৃপক্ষ সম্মানজনকভাবে এবং নীরবে স্বাতী কোবিন্দকে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্টের পদ থেকে ‘এয়ার ইন্ডিয়া’ অফিসের অভ্যন্তরীণ বিষয়ক বিভাগে স্থানান্তরিত করেছেন – সম্ভবত তার বিশেষ নিরাপত্তা প্রয়োজনের জন্য উদ্বেগের কারণে (রাষ্ট্রপতির কন্যা হিসেবে)। আমাদের রাষ্ট্রপতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা… তিনি নিঃশব্দে তাঁর মেয়ের মধ্যে উজ্জল গুণাবলীর জন্ম দেওয়ার কাজটি করেছেন… আজকের বিষাক্ত বিরোধী  রাজনীতিতে এটি একটি বিরল উদাহরণ। সর্বে জন সুজানো ভবনু। সর্বে সুজানা সুখিনো ভবন্তু৷
বন্ধুর দেওয়াল থেকে। (উদ্ধৃতি)”

নিউজমোবাইল ভাইরাল দাবির সত্যতা যাচাই করে দেখেছে দাবিটি বিভ্রান্তিকর।

গুগল-এ প্রাসঙ্গিক কিওয়ার্ড সার্চ করার সময় আমরা ২০১৭ থেকে বেশ কয়েকটি রিপোর্ট পেয়েছি যাতে বলা হয়েছে যে রাষ্ট্রপতি কোবিন্দের কন্যাকে অক্টোবর ২০১৭ সালে নিরাপত্তার কারণে এয়ার ইন্ডিয়াতে গ্রাউন্ড ডিউটি দেওয়া হয়েছিল।

হিন্দুস্তান টাইমসের (‌ Hindustan Times )‌ ১২ নভেম্বর, ২০১৭-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুসারে স্বাতী এয়ার ইন্ডিয়ার দীর্ঘ-দূরত্বের বোয়িং ৭৮৭ ও বোয়িং ৭৭৭ ফ্লাইটে একজন কেবিন ক্রু ছিলেন। এয়ারলাইনটির একজন মুখপাত্রের মতে, তাঁকে এয়ারলাইনের সদর দফতরে এয়ার ইন্ডিয়ার ইন্টিগ্রেশন বিভাগে নিযুক্ত করা হয়েছিল।

এনডিটিভি (‌ NDTV )‌ এবং ফার্স্টপোস্টও (‌ Firstpost   )‌ ২০১৭ সালে একই ঘটনা রিপোর্ট করেছিল।

টাটা গোষ্ঠী ( TATA group )  ২০২২ সালের জানুয়ারিতে এয়ারলাইনের ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে, যে সংস্থাটিতে স্বাতীকে ২০১৭ সালে স্থল দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছিল।

উপরের তথ্যের ভিত্তিতে বলা যায় ভাইরাল দাবিটি বিভ্রান্তিকর।