Fact Check: হ্যারিকেন ইয়ানের পরে ফ্লোরিডা হাইওয়েতে হাঙ্গর সাঁতার কাটার সম্পাদিত ছবি ভাইরাল হয়েছে

0 10

২৮ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত ল্যান্ডফল হওয়ার পরে হ্যারিকেন ইয়ান ১৫০ মাইল-ঘণ্টা বাতাসের গতিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডাকে বিধ্বস্ত করে, ২.৪ মিলিয়ন বাড়ি ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বিদ্যুৎবিহীন হয়ে যয়, এবং বন্যার জল অভ্যন্তরীণ ভূভাগে দাঁড়িয়ে যায়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মতে কমপক্ষে ১০ জনের প্রাণহানির কথা নিশ্চিতভাবে জানা গিয়েছে, এবং আরও অনেক মৃত্যুর খবর আসতে পারে। সব মিলিয়ে এটি ফ্লোরিডার ( Florida )  ইতিহাসে সম্ভবত সবচেয়ে মারাত্মক ঝড় ছিল।

এই পটভূমিতে ফ্লোরিডায় হ্যারিকেন ইয়ানের সঙ্গে যুক্ত করে সোশ্যাল মিডিয়ায় রাস্তায় একটি হাঙ্গরের সাঁতার কাটার ছবি ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে৷

ছবিটি ফেসবুকে একটি ক্যাপশন সহ শেয়ার করা হয়েছে: “হাঙর! (ফ্লোরিডা হাইওয়ে)”

এইখানে পোস্টের (‌ post )‌ লিঙ্ক পাবেন।

FACT CHECK

নিউজমোবাইল উপরোক্ত দাবিটির সত্য-নিরীক্ষা করেছে এবং এটি মিথ্যা বলে প্রমাণিত হয়েছে।

একটি সাধারণ রিভার্স ইমেজ সার্চ করে আমরা ২০১১ সালে একই ভাইরাল চিত্র বহনকারী বেশ কয়েকটি টুইট পেয়েছি। এই চিত্রটি বারবার প্রকাশিত হয়েছে, বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হ্যারিকেন বা তীব্র বৃষ্টির সময়। এটিকে পুয়ের্তো রিকোর রাস্তায় দেখা গিয়েছিল ২০১১ (‌ 2011 )‌ সালের আগস্টে হ্যারিকেন আইরিন–এর পর। নিউ জার্সিতে সুপারস্টর্ম স্যান্ডির সময় ২০১২ (‌ 2012 )‌ সালের অক্টোবরেও নাকি একে দেখা গিয়েছিল। আবার এটি ২০১৭ ( 2017 )  সালের আগস্টে হারিকেন হার্ভে চলাকালীন হিউস্টন টেক্সাসেও উপস্থিত হয়েছিল।

আমরা ২ সেপ্টেম্বর, ২০১১ তারিখের একটি সংবাদ প্রতিবেদনও (‌ news report )‌ পেয়েছি, যা ভাইরাল ছবির দাবি খারিজ করেছিল৷ নিবন্ধে লেখা ছিল: “ছবিটি খারিজ করা হয় যখন কেউ কেউ লক্ষ্য করেছিলেন যে হাঙ্গরটিকে একটু বেশি পরিচিত মনে হয়েছিল। এটি প্রথম ২০০৩ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় টমাস পি পেসচাকের তোলা একটি আইকনিক ছবিতে প্রদর্শিত হয়েছিল৷ সেই শটটিতে সুন্দর নীল জলে এক একাকী কায়াকারকে দেখানো হয়েছে, আর তার থেকে কয়েক ফুট পিছনে ছিল পুরুষ হাঙ্গরটি। এটি অন্যান্য প্রকাশনার মধ্যে আফ্রিকা জিওগ্রাফিক–এ প্রকাশিত হয়েছিল। কেউ একজন পুয়ের্তো রিকান রাস্তায় হাঙ্গরটিকে ফটোশপ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এটা দেখতে যে মানুষ তা সাগ্রহে গ্রহণ করেন কি না।’‌’‌

“টমাস পি পেসচাক শার্ক কায়াক” ও “আফ্রিকা জিওগ্রাফিক হাঙ্গর ভাইরাল” লিখে আমাদের কীওয়ার্ড সার্চের ফলস্বরূপ, যা উপরে উল্লিখিত প্রতিবেদন থেকে অনুপ্রাণিত হয়েছিল, আমরা আফ্রিকা জিওগ্রাফিক এবং ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক (‌ National Geographic  )‌ উভয়ের ওয়েবসাইটে এই ছবিটি (‌  image  )‌ সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছি।

২০০৩ সালে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের ফটোগ্রাফার থমাস পেসচাক এই মহান সাদা হাঙরটির ছবি তুলেছিলেন, যখন তিনি বিজ্ঞানী ট্রে স্নো–র দক্ষিণ আফ্রিকার উপকূলে উজ্জ্বল রঙের কায়াকটিকে অনুসরণ করছিলেন। নিবন্ধ অনুসারে, তারপর থেকে ব্যক্তিরা কাল্পনিক ভয়ঙ্কর চিত্র তৈরি করতে ফটো-এডিটিং সফটঅয়্যারের মাধ্যমে হাঙ্গরটিকে যুক্ত করেছে।

তাঁর ওয়েবসাইটে (‌ website )‌ ফটোগ্রাফার ছবিটির সঙ্গে তাঁর মিথস্ক্রিয়া এবং পরবর্তী জাল প্রচেষ্টা সম্পর্কেও কথা বলেছেন। পেসচাক দাবি করেছেন যে ১০ মাসেরও বেশি সময় ধরে তিনি হোয়াইট শার্ক ট্রাস্টের সঙ্গে সাদা হাঙরের নতুন ফটোগ্রাফ সরবরাহ করতে সহযোগিতা করছিলেন, যা চলতি অধ্যয়নের চিত্র হিসাবে কাজ করবে। পেসচাক লিখেছেন, “আগস্ট ২১, ২০১১–এ হ্যারিকেন আইরিন পুয়ের্তো রিকোর ক্যারিবিয়ান দ্বীপে আঘাত হানে এবং অনেক রাস্তা প্লাবিত হয়। আমি কখনই ভাবতে পারিনি যে আমার ফটোগ্রাফটি এই প্রেক্ষাপটে এসে উপস্থিত হবে, তবে কায়াক বাদ দিয়ে শুধু হাঙ্গরটি। ২৪শে আগস্ট, হাঙ্গরটি একটি সোশ্যাল নিউজ ওয়েবসাইটে একটি প্লাবিত রাস্তায় গাড়ি চালানোর খোলা জানালা থেকে তোলা একটি ছবির আকারে উপস্থিত হয়েছিল। গাড়ির পাশেই ছিল ‘আমার’ সাদা হাঙর, যা পুয়ের্তো রিকোর প্লাবিত রাস্তায় সাঁতার কাটছিল। এরপর ছবিটি তুলে নিয়ে চ্যানেল 7 নিউজ মিয়ামির একটি টিভি বুলেটিনে ব্যবহার করা হয়। হাঙরটিকে ভালভাবে পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে এটি আমার ছবিতে কায়াককে অনুসরণ করা হাঙরের সঙ্গে অভিন্ন। দেখা যাচ্ছে যে একজন ধূর্ত ফটোশপ শিল্পী বন্যার রাস্তার একটি দৃশ্যে হাঙ্গরটিকে সুপারইমপোজ করেছেন।”

আমরা জানতে পেরেছি যে হাঙ্গরটিকে জুন ২০১২ সালে একটি জাল ছবি তৈরি করতেও ব্যবহার করা হয়েছিল, যখন অনেক টুইটার ( Twitter )  ব্যবহারকারী কুয়েতের একটি মলে একটি ট্যাঙ্ক পড়ে গেছে বলে মিথ্যা রিপোর্ট করার সময় দুটি হাঙরের ছবি ছড়িয়ে দিয়েছিল।

এইভাবে উপরের তথ্য থেকে এটি স্পষ্ট যে একটি সম্পাদিত ছবি আবার শেয়ার করা হচ্ছে ফ্লোরিডার হারিকেন ইয়ানের সাথে মিথ্যাভাবে লিঙ্ক করে। অতএব, ভাইরাল দাবি মিথ্যা‌।