Fact Check: ইরানের পুরনো ভিডিও অসত্যভাবে ইউ এ ই–র সাম্প্রতিক বন্যার সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে

0 9

সংযুক্ত আরব আমিরাশাহিতে  (ইউ এ ই) ২৭ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে, যার ফলে দেশের অনেক অংশে ভয়াবহ বন্যা (‌ floods )‌ হয়েছে। মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, “উত্তর আমিরাশাহির বিশাল অংশ ভারী বৃষ্টি ও আকস্মিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পরে একটি বড় আকারের জরুরী প্রতিক্রিয়াজনিত প্রয়াস চলছে।”

এই পটভূমিতে আকস্মিক বন্যায় গাড়ি ভেসে যাওয়ার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে, এবং দাবি করা হয়েছে যে এটি সংযুক্ত আরব আমিরশাহির ফুজাইরার অবস্থা।

উর্দুতে একটি ক্যাপশন সহ ভিডিওটি ফেসবুকে শেয়ার করা হচ্ছে:“طوفان جارف يجتاح الامارات الفيديو من مدينة الفجيرة”

(‌অনুবাদ:‌ আমিরশাহিতে ভয়ঙ্কর বন্যা হয়েছে, ফুজাইরার ভিডিও)‌।

এখানে ওপরের পোস্টের (‌ post )‌ লিঙ্ক দেওয়া হল।

FACT CHECK
নিউজমোবাইল উপরোক্ত দাবির সত্যতা যাচাই করেছে, এবং এটি বিভ্রান্তিকর বলে প্রমাণিত হয়েছে।

ইনভিড টুল ব্যবহার করে আমরা ভাইরাল ভিডিও থেকে কিফ্রেমগুলি বের করেছি এবং সেগুলির রিভার্স ইমেজ সার্চ করেছি৷ এই অনুসন্ধানটি আমাদেরকে ২০১৮ সালের একটি নিবন্ধে (‌ article )‌ নিয়ে যায় যেটিতে একটি ভিডিও রয়েছে যা ভাইরাল ভিডিওর অনুরূপ। তার বর্ণনায় লেখা আছে, “শিরাজের কোরান গেটে বন্যা”। শিরাজ দক্ষিণ-মধ্য ইরানের একটি শহর।

আরও অনুসন্ধান করতে গিয়ে, আমরা আরেকটি ইরানি (‌ Iranian  )‌ ওয়েবসাইট খুঁজে পেয়েছি যেখানে ২০১৮ সালে একটি অনুরূপ ভিডিও আপলোড করা হয়েছিল। তার ক্যাপশন ছিল, “শিরাজে একটি ভয়ানক বন্যার ফলে এই শহরের কোরান গেটে কয়েক ডজন গাড়ি উল্টে যায় এবং ভাসতে থাকে।”

ভাইরাল ভিডিও এবং সংবাদ সংস্থার প্রকাশিত ভিডিওগুলির মধ্যে তুলনা করে আমরা তাদের মধ্যে বেশ কিছু মিল খুঁজে পাই। এর অর্থ হল ভিডিওটি অন্তত ২ বছরের পুরনো এবং ইরানের।

তারপরে আমরা এই ভয়ঙ্কর বন্যার ভৌগোলিক অবস্থানটি অনুসন্ধান করেছি, এবং প্রমাণিত হয়েছে যে এই ভিডিওটি তোলা হয়েছিল ইরানের শিরাজ শহরের একটি স্কোয়ারে, যার নাম ময়ূর স্কোয়ার (‌ Peacock Square )‌।

সুতরাং, উপরের তথ্য থেকে এটা স্পষ্ট যে ইরানের একটি পুরনো ভিডিও সংযুক্ত আরব আমিরশাহির সাম্প্রতিক বন্যার সঙ্গে অসত্যভাবে যুক্ত করা হচ্ছে। অতএব, ভাইরাল দাবি বিভ্রান্তিকর।